জেনে নিন র‍্যাম&রম কি? কি কাজ করে???কিভাবে কাজ করে???

RAM কি?

র্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমোরি (ইংরেজি : Random access memory), সংক্ষেপে র্যাম (RAM) হল এক ধরনের উপাত্ত (ডাটা) সংরক্ষণের মাধ্যম। র্যাম থেকে যে কোন ক্রমে উপাত্ত “অ্যাক্সেস” করা যায়, এ কারণেই একে র্যান্ডম অ্যাক্সেস মেমোরি বলা হয়। র্যান্ডম শব্দটি দিয়ে এখানে বুঝানো হয়েছে – যে কোনো উপাত্ত (তার অবস্থানের উপরে নির্ভর না করে) ঠিক একই নির্দিষ্ট সময়ে উদ্ধার করা যায়। রক্ষনাত্নক দৃষ্টিতে, আধুনিক ডির্যামগুলো র্যান্ডম এ্যাকসেস মেমোরি নয় (যেভাবে এগুলো ডাটা রিড করতে পারে)। একইসাথে, বিভিন্ন ধরনের এসর্যাম , রম, ওটিপি এবং নর ফ্ল্যাশ ইত্যাদি র্যান্ডম এ্যাকসেস মেমোরি। র্যামকে ভোলাটাইল মেমোরিও বলা হয় কারন এতে সংরক্ষিত তথ্য বিদ্যুত সংযোগ বিচ্ছিন্ন হওয়ার পর আর থাকে না। অর্থাৎ আপনার ডিভাইস off করার পরে তথ্য মুছে যাবে, র্যাম খালি হয়ে যাবে।আরো কিছু নন-ভোলাটাইল মেমোরি (যেগুলোতে বিদ্যুত চলে যাওয়ার পরও তথ্য মুছে যায় না) যেগুলো রক্ষনাত্মক দৃষ্টিতে র্যাম, সেগুলো অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইসে রম বলে। একধরনের ফ্লাশ মেমোরি যাকে নর-ফ্লাশ বলে।আপনার ফোনে RAM (Random Access Memory) কম থাকলে ভালো গেইম চলবে না। আপনি একটা গেইম চালু করলেন। এখন গেমটা খেলতে ১জিবি র্যাম লাগবে। কিন্তু আপনার যদি ৫১২মেগা র্যাম থাকে তাহলে প্রথমে র্যামে ৫১২ এমবি ঢুকবে পরে ৫১২এমবি ঢুকবে। গেমটা চালু হতে ডবল সময় লাগবে। ফলে ল্যাগ করবে অর্থাৎ হয়ত গেমটা চলবেই না।

ROM ও RAM এর মধ্যে পার্থক্য কি?

ফোনের বিভিন্ন কাজ করতে করতে একসময় র্যাম ফুল হয়ে যায়।আবার মোবাইল off করে on করলে র্যামের সব স্মৃতি মুছে যায়। অন্যদিকে রম তথ্য স্থায়ীভাবে সংরক্ষন করে যেটা কোন অবস্থাতেই পরিবর্তন করা যায় না। অর্থাৎ র্যাম হল অস্থায়ী মেমরি যা এপ্লিকেশন চালাতে সাহায্য করে।


র্যাম কিভাবে কাজ করে?

যখন আপনি একসাথে অনেকগুলো এপ্লিকেশন চালান, তখন তাদের টেম্পোরারি ফাইলগুলো জমা হতে থাকে, একসময় RAM এ আর জায়গা থাকেনা। তো? এবার হিসাবের কি হবে? তখন আসে হার্ড ড্রাইভের বা এক্সটার্নাল মেমোরির কাজ। পরের হিসাবের তথ্যগুলা হার্ড ড্রাইভে রেখে প্রসেস করতে হয়, আর যেহেতু হার্ড ড্রাইভ ফিজিকাল র্যাম থেকে স্লো, তাই আপনার প্রোগ্রাম আটকে আটকে যায়।অ্যান্ড্রয়েডের সবচেয়ে অসাধারণ দিক হল এর ব্যাকগ্রাউন্ডে প্রোগ্রাম চালানোর দক্ষতা। যেকোনো প্রোগ্রাম স্ট্যান্ডবাই মুডে রাখতে পারে অ্যান্ড্রয়েড। এই স্ট্যান্ডবাই মুডের পিছনে

কাহিনী হল, ওই অ্যাপের দরকারি তথ্য তার RAM এ ধরে রাখে,যাতে ইউজারের ইচ্ছামত ওই অ্যাপের আগের অবস্থায় ফিরে যাওয়া যায়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *